Connect with us

গল্প

রূপলোক | বিজয়া দেব | ছোট গল্প

Published

on

রূপলোক | বিজয়া দেব | ছোট গল্প
রূপলোক | বিজয়া দেব | ছোট গল্প

রোববার রোববার অভিষেক আসে । তাতাইকে কোলে নেয় । হাতে ধরিয়ে দেয় চকোলেট , খেলনা । বেড়াতে নিয়ে যায় । থেকে থেকে একটা অজানা ভয় তাড়িয়ে মারছে মনামিকে । অভিষেক এখন অনেক দূরের মানুষ । এক অচেনা জগতে সে আছে । যে জগতটার সাথে মনামির কোনও যোগ নেই । তাতাই হয়ত এমনি একটা জগতে চলে যাবে , যে জগতকে সে চেনে না ।

আজ ইস্কুলে সে ছিল আনমনা । ক্লাস করতে গিয়ে প্রিয় ছাত্রী রাহির মুখটাকে হঠাৎ পাল্টে যেতে দেখল । দেখল মেয়েটার চোখদুটো কুতকুতে , কাঁধে বেরিয়েছে কুঁজ আর সারস পাখির মত নাক । দেখল রাহি হঠাৎ জানালা দিয়ে ফুস করে উড়ে গেল । রাহি , তার সব চাইতে প্রিয় ছাত্রী । একটু পরেই আবার ফিরে এসে বলে ,’ ম্যাম , মে আই ফ্ল্যাই নাউ ? ‘ ওমা , রাহির পিঠে কুঁজ নয়ত , দুটো ডানা বেরিয়েছে , সব ছাত্রী একসাথে দাঁড়িয়ে বলল , ‘ ম্যাম , মে উই ফ্ল্যাই নাউ ? ‘এখন আকাশ থেকে নেমে এল এক শ্বেতশুভ্র মেঘ । এসে জানালায় গেল আটকে । মেয়েরা সমস্বরে চেঁচিয়ে উঠল , ‘ ম্যাম , মে উই টাচ দ্য ক্লাউড ? মে উই রাইড অন হার ? ‘ ‘ হার ‘ ? মেঘ কি পুংলিঙ্গ না কি স্ত্রীলিঙ্গ ? সে ভাবছে অমনি রাহি বলে উঠল , ‘ ম্যাম, ক্লাউড ইজ ফেমিনিন ইন জেন্ডার । মেঘবালিকা । ‘ হ্যাঁ , ঠিক , তাই তো । ফেমিনিন ইন জেন্ডার । মেঘবালিকা । একটু পরেই আবার সব ঠিকঠাক । কোথায় মেঘ , কোথায় পিঠে ডানাওয়ালা রাহি ? যেমনটি তেমন । সবাই ক্লাসে বসে । তবে সবার চোখ কৌতূহলী , অবাক করা । রাহি তো প্রথম বেঞ্চেই বসে , যেমন থাকে । কী পড়াচ্ছিল সে ! না কি রোলকল করছিল ? অ্যাটেনডেন্স রেজিস্টারটি সামনে খোলা । রাহি দাঁড়িয়ে বলে , ‘ ম্যাম, লাস্ট নাম্বার ইজ ফোরটিফাইভ । ‘ মানে সে রোলকল করছিল ।

রাতে তাতাই ও অভিষেক চলে যাচ্ছিল চুপি চুপি । দরজাটা আধ ভেজানো , বাইরে চাঁদনি রাত । জ্যোৎস্নায় ভাসছে পথ ঘাট । এক জঙ্গুলে পথ বেয়ে তাতাইকে নিয়ে চলে গেল অভিষেক । অনেক চেঁচামেচি করল মনামি , কেউ ফিরেও তাকাল না । আকাশে দুধ সাদা চাঁদ , তার নিচে ধপধপে সাদা বিছানা । ঠাণ্ডা কোমল হাত তার কপালে , কেউ তার মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে , আর এক কালো ঘোড়ায় তাতাইকে বুকে চেপে টগবগিয়ে পাশ দিয়ে চলে গেল অভিষেক । কেউ ফিসফিস করে বলল , ‘ ডোন্ট ওয়ারি ম্যাম , আই অ্যাম হিয়ার , আমি রাহি । ‘ এরপর জোর ঠেলাঠেলি । ‘ উঠছ না কেন ? কি হয়েছে ? দ্যাখো কত রোদ । ‘ ঘড়িতে আটটা । ঈস্ ! তাতাই এখনো কিছু খায়নি । একটা তিন চাকার সাইকেলে বসে আছে । আজ রোববার । কাল রাতে একটা অ্যালজোলাম খেয়ে নিয়েছিল । এখনো সারি আসেনি । মনামির হেল্পার । নাহলে ডাকাডাকি শুরু করে দিত । আজ রোববার , সারি জানে । সব রোববারেই সে একটু রয়েসয়ে আসে । ঘরে বুড়ো মা । এক কলসি জল এনে দেয় দূরের কুয়ো থেকে । খুব মিষ্টি জল । শুধু রোববারের জন্যে বরাদ্দ ওই স্বাদু জল । অন্যদিন সারির ত সময় নেই । বেসিনে কল খুলে চোখেমুখে জল দেয় সে , তাতাই সাইকেল চালাতে চালাতে তার পাশে এসে বলে , ‘মাম্মাম , টুডে ইজ সানডে । সানডে ইজ আ …? ‘ টুথব্রাস মুখে জড়ানো গলায় সে বলে ,’ হলিডে ।’ তাতাই আবার প্যাডেল ঘোরাতে ঘোরাতে চলে যায় । গত রোববার অভিষেক আসেনি । তার আগের রোববার ও না । সানাই বলেছিল অভিষেক নাকি অফিস ট্যুরে । ফিরেছে ? কে জানে ! সানাইকে জিজ্ঞেস করা যায় ? না থাক ।

দিনের শুরু হল নিজের ছন্দে । সারি এল । কাজ করছে , কথা বলছে । ‘দাদাবাবু আসবে আজ , মনে হচ্ছে । ‘ কাজের ফাঁকে কথাটা বলে একবার দেখেও নিল তাকে । আর তাতাইকে ডেকে নিয়ে গেল ফ্ল্যাট এর বাচ্চারা । যাবার মুখে শুধু একবার বলে গেল তাতাই ,’ মাম মাম , আজ চিলি চিকেন খাব । ‘ মনামি বাজার গেল । মাংস আনল , সারি সব তৈরি করল ।মাংস চাপিয়ে দিল মনামি ।রান্না শেষ হওয়ার আগেই ঢুকল অভিষেক । দেয়ালের দিকে তাকিয়ে বলল , ‘তাতাইকে নিয়ে যাচ্ছি । ‘

— মানে ?
—-মানে আবার কি ? বিকেলে দিয়ে যাব ।
—–নাআআআআ ।
—না মানে ?
—তাতাইয়ের জন্যে রাঁধছি । ও চিলি চিকেন খাবে । ও খেতে চেয়েছে ।
—-তো কি ? ফ্রিজে রেখে দিলেই হয় । তাতাই কোথায় ? ওক্কে দেখছি ।

মনামি নিশ্চুপ । ঠায় দাঁড়িয়ে । সারি ব্যস্ত পায়ে এসে মাংস সাঁৎলায় । গুজগুজ করে ,’ পুড়ে যাবে গো । ‘

একটু পরেই তাতাই সহ অভিষেক । তাতাইকে বাথরুমে ঢুকিয়ে , ফের গুছিয়ে নিয়ে চলল । তাতাই ছুটে এসে মনামির গালে হামি খেয়ে কানের কাছে মুখ এনে ফিসফিস করে বলে ,’ মন খারাপ করো না কিন্তু ,চিলি চিকেন টা হয়েছে ? ‘ সাথে সাথে অভিষেকের ভারী গলা ,’ তা-তা-ই ? ‘ তাতাই শুধু বলে , ‘টা টা…’

ওরা বেরিয়ে যায় । সারি শুধু বকবক করে , ‘এই তো হয়েই গেল । ইস , একটু চেখে দেখতে চাইল । এ কেমন বাবা । আমার ঘরে ওদের বাবা বাচ্চা দের না দিয়ে কিচ্ছুটি মুখে তুলবে ? না বাবা । আমি ত বলি ……’

কী বলে সারি কে জানে ! মনামি দেখে জানালার আলসেয় বসে থাকা বেড়াল দেখতে দেখতে রুমাল হয়ে গেল । ছিল সাদা বেড়াল , এখন হাল্কা নীল রুমাল ক্লিপ দিয়ে গ্রিলে আটকানো । বেড়াল কোথাও নেই । সারির ঠোঁট নড়ছে , কিন্তু শব্দ নেই । শুধু দেখা গেল সারি আঁচলে ভিজে হাত মুছতে মুছতে বেরিয়ে গেল ।

আবার শব্দেরা এল । সারি বেরিয়ে যাবার খানিক পর । ফোন বাজল । সানাই ।’ কি রে একা ঘরে কি করছিস , অভিষেক নিয়ে গেছে তাতাইকে ? এখানে চলে আয় । আজ দুপুরে ডুয়েট গাই চল । ‘

মনামি —আচ্ছা সানাই , তুই কখনও বেড়ালকে রুমাল হতে দেখেছিস ?
সানাই —আমি দেখিনি , তবে এমনটা হতে পারে ।

মনামি —-আজ তাতাই বেরিয়ে গেল , তারপর সাদা বেড়ালটা নীল রুমাল হয়ে গেল ।
সানাই —-ইন্টারেস্টিং ! দাঁড়া , আমি আসছি ।

সানাই ও মনামি , ছোটবেলার দুই বন্ধু । খুব ভাল গান করে দুজনে । একবার দুজনেই লাল ফ্রক পরে ডুয়েট গেয়েছিল , ‘ এই ছোট্ট ছোট্ট পায়ে চলতে চলতে ঠিক থমকে যাব …।’ প্রাইজ জিতেছিল । এখনও অ্যালবামে ছবি আছে ।

সানাই এখন খাবার টেবিলে । চিলি চিকেন চেখে দেখছে । খেতে খেতে বলছে , ‘তাতাই কখন আসবে রে ? ‘

মনামি কি জানে ঠিক কখন আসবে ? একবার ‘বিকেলে এনে দেব ‘বলে দুদিন পরে এনেছিল , দুদিন ইস্কুল কামাই হয়েছিল তাতাইয়ের । মনামি কত যে ফোন করল ! কোর্ট থেকে নির্দেশ দিয়েছে প্রতি রোববার দুপুর তাতাই তার বাবার সাথে কাটাবে । সেবার অভিষেকের মা ফোন ধরছিলেন , বলছিলেন তাতাই নাকি আসতে চাইছে না । কি দুর্ভাবনা ! তাতাই ফিরে আসার পর বলল ,’ মা , তোমার জন্যে আমার কি কষ্ট হছছিল , বাবা আমাকে নিয়ে আসছিল না । ‘ ফের উকিলের কাছে যেতে হল মনামিকে । এসব কথা ভাবছে দেখল সানাই সারা ঘরে ছুটোছুটি করছে । পরনে সেই লাল ফ্রক । মনামি গাইছে ‘এই ছোট্ট ছোট্ট চলতে চলতে থমকে যাবো …’

সানাই এবার গাইছে’ দোলে দোদুল দোলে দোলনা …অ্যালবামে কত ছবি ! ইস্কুলে সাস্কৃতিক অনুষ্ঠান । ঘোষণা হল ,” এবার ডুয়েটে আমাদের প্রিয় পরিচিত মুখ… সানাই ও মনামি …’দোলে দোদুল দোলে দোলনা…’

বিকেলে এল অভিষেক । তাতাই লাফাতে লাফাতে ঢুকল । অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে । কী অত দেখছে তাতাই ? তাতাই কী এখন চিলি চিকেন খাবে ? অভিষেক ও সানাই হাত ধরাধরি করে বেরিয়ে গেল । তাতাই বলে ,’ মাম্মাম্ , তুমি ছোট হয়ে গেছ কেন ? ‘ মনামি খুশি হয়ে বলে,’আমায় ছোট দেখাচ্ছে ? তাই বল । ‘

তাতাই খুব নাড়া দিয়ে বলে , ‘ মাম্মাম তোমার কি হয়েছে ? চিলি চিকেন খাবো । বলছি ত , কথা বলছো না কেন ? ‘

মনামি হাসতে হাসতে বলে, ‘ এই তো দিচ্ছি । ছোট আমিকে কেমন দেখাচ্ছে বল ? ‘
তাতাই কি বলল , আবার শব্দেরা শব্দহীন ।

অভিষেক ও মনামির আইনি বিচ্ছেদ হতে চলেছে । আদালতের নির্দেশেই অভিষেকের এই যাওয়া আসা । এখন তাতাইকে দিয়ে ফেরার পথে গাড়ি চালাচ্ছে অভিষেক , পাশে বসে সানাই । অভিষেকের স্টিয়ারিং এ হাত , সানাই বাইরে দেখছে । ঝকঝকে সন্ধ্যা নামছে পথঘাট জুড়ে ।

‘ মনামিকে দেখেছ ? কেমন পালটে যাচ্ছে । ‘

‘ দেখিনি । ‘ সানাইয়ের প্রশ্নের জবাবে অভিষেকের সংক্ষিপ্ত উত্তর ।

‘ দেখবে কেন , এখন ত শুধু দিনের অপেক্ষা …কবে ফাইনাল রায় দেবে ! তোমার মন বলে কি কিছু নেই ? আশ্চর্য ! ‘

অভিষেকের পাথুরে মুখ । কিছু শুনল বলে মনে হল না । গাড়িটা থামল ‘ভ্যারাইটি স্টোর্সের’ সামনে । অভিষেক সানাইকে নামিয়ে দিয়ে চলে গেল । আক দোকানপাট বন্ধ , রোববার । পথঘাটও তেমন জমাটি নয় । ইলশেগুঁড়ি বৃষ্টি নেমেছে ।

‘ ম্যাম , প্লিজ শুনুন ! ‘ সানাই অবাক হয়ে দেখল সাদা সালওয়ার কামিজে একটি মেয়ে , গলায় লাল টকটকে ওড়না জড়ানো , অতিমাত্রায় ফর্সা গায়ের রঙ , এই রাতের আবহে যেন দ্যুতি ছড়াচ্ছে তার অবয়ব । সানাই মন্ত্রমুগ্ধের মত তাকিয়ে ।

মেয়েটি এগিয়ে এসে ফিসফিস করে বলে , ‘ আরে , চিনতে পারিস নি বুঝি ? আমি মনামি । শোন শোন , অভিষেক নামের ছেলেটি ঐ যে রে ফাইনাল ইয়ারের ছাত্র , আমার প্রেমে পড়েছে জানিস ! কী বিশ্বাস হচ্ছে না ? এই দ্যাখ !’ হ্যাঁ , মেয়েটির হাতে একটি টকটকে লাল গোলাপ ।

‘ ম্যাম , কোথায় যাবেন ? রাস্তাটা বেশ ফাঁকা অ্যান্ড ইউ আর অ্যালোন । সেজন্যে আমি নেমে এসেছি । গাড়িতে আমার মমআছে । আমি কি আপনাকে হেল্প করতে পারি ? আপনি কোথায় যাবেন ? আপনাকে ড্রপ করে দেব ….’ সানাই দেখে একটি সাদা গাড়ি দাঁড়িয়ে । জানালায় এক মহিলার মুখ ।

পরদিন বেশ রাতে অভিষেক ফোন করে মনামিকে -‘-কাল এগারটায় হিয়ারিং আছে , মনে আছে ত ? কোর্টে আসতে হবে । ‘

অভিষেক শুনল মনামি বলছে ,’ কী করে যাব বল , চারদিকে যা বরফ পড়ছে , দ্যাখো না , আমার আঙ্গিনাটা বরফে বরফে সাদা হয়ে গেল ।এই পাতাঝরা গাছগুলো আর বরফের প্রান্তর ছেড়ে কোথাও যেতে পারছি না কাল । ‘

লাইনটা কেটে গেছে । ছাদে দাঁড়িয়ে অভিষেক দেখতে পেল খুব উজ্জ্বল আকাশযান তীব্র গতিতে ছুটে যাচ্ছে । তাতাই হলে বলত , ‘ বাবা এটা কি ইউ এফ ও ?

Advertisement বিনোদনসহ যেকোনো বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও- rupalialo24x7@gmail.com
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

রোদেলা জান্নাত (Rodela Jannat)। ছবি : ফেসবুক
ঢালিউড3 weeks ago

শাকিব খানের নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত, কে এই রোদেলা : অনুসন্ধানী প্রতিবেদন

রঙ্গন হৃদ্য (Rangan riddo)। ছবি : সংগৃহীত
অন্যান্য3 weeks ago

ভাইরাল রঙ্গন হৃদ্যকে নিয়ে এবার সমালোচনার ঝড়

পূজা চেরি। ছবি : সংগৃহীত
ঢালিউড4 weeks ago

শাকিব খানেও আপত্তি নেই পূজা চেরির

শাকিব খানকে পেয়ে যা বললেন নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত
ঢালিউড3 weeks ago

শাকিব খানকে পেয়ে যা বললেন নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত

আয়েশা আহমেদ
অন্যান্য2 weeks ago

আয়েশা আহমেদের আবারও আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায় সাফল্য

শাকিব খান ও রোদেলা জান্নাত। ছবি : সংগৃহীত
ঘটনা রটনা3 weeks ago

বুবলীর পর এবার সংবাদ পাঠিকা রোদেলা জান্নাতকে নায়িকা বানাচ্ছেন শাকিব খান

পায়েল চক্রবর্তী
টলিউড3 weeks ago

টালিউড অভিনেত্রী পায়েল চক্রবর্তীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ঢালিউড3 weeks ago

এক হচ্ছেন শাকিব খান-নুসরাত ফারিয়া

শিনা চৌহান
অন্যান্য4 weeks ago

শিনা এখন ঢাকায়

অঞ্জু ঘোষ। ছবি : সংগৃহীত
ঢালিউড3 weeks ago

যে কারণে অবশেষে ঢাকায় ফিরলেন চিত্রনায়িকা অঞ্জু ঘোষ

সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : তাহমিনা সানি
নির্বাহী সম্পাদক : এ বাকের
প্রকাশক : রামশংকর দেবনাথ
বিভাস প্রকাশনা কর্তৃক ৬৮-৬৯ প্যারীদাস রোড, বাংলাবাজার, ঢাকা-১১০০ থেকে প্রকাশিত।
ফোন : +88 01687 064507
ই-মেইল : rupalialo24x7@gmail.com
© ২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রূপালীআলো.কম