Connect with us

অসঙ্গতি সিরিজ

কুসংস্কারের আবর্তে বিশ্ব মানব | তামান্না জেসমিন | অসঙ্গতি সিরিজ-২

Published

on

কুসংস্কারের আবর্তে বিশ্ব মানব | তামান্না জেসমিন | অসঙ্গতি সিরিজ-২
কুসংস্কারের আবর্তে বিশ্ব মানব | তামান্না জেসমিন | অসঙ্গতি সিরিজ-২

কোটি কোটি বছর ধরে নানা বিবর্তনে প্রকৃতি, পশুপাখি, জীবজগৎ এবং মানুষের পরিবর্তন হয়েছে, এই পরিবর্তনের ধারা প্রবাহমান। ভবিষ্যতে হাজার কোটি বছর পরে এ পৃথিবীর চিত্র, আমাদের মানসিকতা শারীরিক গঠন কতটা পরিবর্তন পরিবর্ধন হবে সে বিষয়ে কেউ স্পষ্ট ধারণা করতে পারে না।

কিন্তু বর্তমানের এই আমরা কেমন আছি কেমন থাকতে চাই, কোনটি ভালো কোনটি মন্দ – এসব বিচার বিবেচনা যুক্তি ও বুদ্ধির দ্বারা পরিচালিত হয়ে চলতে চাই কেবল মাত্র সুস্থ সুন্দর এবং সমৃদ্ধ থাকবার প্রয়োজনে। প্রাচীন কালে গোষ্ঠীবদ্ধ গুহা বসবাসের ধারণা থেকে বেরিয়ে মানুষ সমাজ রাজনীতি এবং আলাদা আলাদা মহাদেশ, জাতিগোষ্ঠীর মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন মানচিত্র অংকিত হয়েছে, সৃষ্টি হয়েছে জাতিসংঘ। সামাজিক ও জাতীয় সংগঠনগুলো মানবিক কল্যাণে ততপর থাকছে।

এখন থেকে যদি সভ্যতার কথা চিন্তা করি তবে সেই সভ্যতার সূচনা হয়েছিলো প্রাচীন কালের পাথরে ঘষে আগুনের সূত্র ধরে। মাত্র পাঁচশত বছর পূর্বেও মানুষের কল্পনায় ও ছিলো না বর্তমানের টেলিফোন, টেলিভিশন, উড়োজাহাজ, ট্রেন, গাড়ি এবং ভিন গ্রহে পাড়ি দেবার ইচ্ছের কথা। সে সময়ে চিকিৎসার একমাত্র নির্ভরতা ভেষজ গাছ পাতা শেকড় এবং কুসংস্কার নির্ভর বৈদ্য ওঝা ঝাড় ফুক।

অতি সাধারণ অসুখবিসুখে চিকিৎসার অভাবে মৃত্যু হতো মানুষের। স্থান কাল পাত্রের নিরিখে সেখান থেকে এ পর্যন্ত হেঁটে আসার দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় নানা ধর্মের উতপত্তি , নানা ধর্ম বর্ণ বৈষম্য সভ্যতার উত্থান পতন, দেশ- মহাদেশ, জাতি, যুদ্ধ বিগ্রহ, মৈত্রীর মাধ্যমে টিকে থাকার প্রয়োজনে মানুষ এ সময়ে এসে দাঁড়িয়েছে। অথচ এই সভ্যতার আলোতে বাস করেও বিগত দিনের অনেক কুসংস্কার থেকে পরিত্রাণ সম্ভব হয়নি। এসময়ে এসেও হাজারো কুসংস্কারে মানুষ জর্জরিত। কখনো কখনো দেখা যায় এই অযৌক্তিক মিথ্যে মনগড়া কল্পনার কারণে কেউ বিরোধিতা করলে সেখানে সহজেই খুন এবং মারামারির মত ঘটনা ঘটে যেতে।

নিকৃষ্ট প্রথা এবং কুসংস্কার বেশী দিন চলতে পারে না – যা গোষ্ঠী সমাজ এবং মানবতার জন্য হুমকি স্বরুপ। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এবং আমাদের দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বর্তমানে অসংখ্য কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছ , সে সব ভিত্তিহীন অযৌক্তিক আর হাস্যকর ও বটে। পক্ষপাত দুষ্ট লোকেদের এই বিশ্বাসের যায়গা থেকে এক চুলও সরানো সম্ভব নয়।

সমাজ ও ব্যক্তির জীবনে গভীর ভাবে জড়িয়ে থাকা কুসংস্কার নামক সংক্রমণ ব্যাধি সমাজ ও সংসারের এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কে অন্ধ বানিয়ে রাখার নীরব ঘাতকের ভূমিকা পালন করে চলে। আজকের এই আধুনিক সময়ে এসেও লক্ষ্য করা যায় , সূর্য এবং চন্দ্র গ্রহনের সময় সন্তান সম্ভবা নারী কে না খেয়ে তাকে সোজা হয়ে বিছানায় শুয়ে থাকতে হয়। এসময়ে ছুরি বা ধারালো কিছু দ্বারা কাটাকাটি করা যাবে না তা না হলে গর্ভের শিশু বিকৃত অবস্থায় জন্ম নেবে। এমন কি প্রভাব মুক্ত নারীর বেলায় ও এ ঘটনা দেখা যায়। ছোট বাচ্চার কপালে কালো টিপ না দিলে নজর লাগে। হাত থেকে চিরুনি পড়ে গেলে বাড়িতে মেহমান আসে। যাত্রা কালে বিধবা নারী সামনে পড়ে গেলে যাত্রা অশুভ হয়।

ডিম খেয়ে পরীক্ষা দিতে গেলে রেজাল্ট খারাপ হয়। রাতে দোকানদার কখনো ই সূচ বিক্রয় করে না কারণ ব্যবসায় অমঙ্গল। জোড়া কলা খেলে যমজ বাচ্চা জন্ম নেয়। কোনো কোনো অঞ্চলে পহেলা বৈশাখের দিন নতুন কাপড় পরে নিজ বাড়ি ছেড়ে অন্য কোনো বাড়িতে যাওয়া ও খাওয়া যাবেনা। কোন স্বপ্ন দেখলে কি ঘটে – এর উপর বাজারে চটি বই কিনতে পাওয়া যায় এবং সেই বইয়ের কাটতি অনেক।

সাপে কাটলে ওঝা মন্ত্র পড়ে বিষ নামায়। চুরি হওয়া জিনিসপত্র বাটি চালান দিয়ে বের করে দিতে পারে ওঝারা। শাপেদের কাছে ধন সম্পদ গচ্ছিত থাকে, যার প্রতি দয়া হয় তাকে এসব ধন সম্পদ শাপেরা দিতে পারে, রাতে পিতলের বাটিতে শাপের জন্য দুধ রেখে দিলে তারা এসে খেয়ে যায়। বাড়ির পোষা কুকুর রাতে গোঙ্গালে বাড়ির কর্তার মৃত্যু হয়। বাচ্চার গায়ে ঝাড়ুর বাতাস লাগলে ধারণা করা হয় অসুখ বিসুখের শিকার হবে। ভাঙা আয়নায় মুখ দেখলে আয়ু কমে যায় এবং মানুষ দরিদ্র হয়।

এরকম অন্ধ বিশ্বাস কেবল অশিক্ষিতদের মধ্যেই নয় বরং অনেক শিক্ষিতদের মাঝেও দেখা যায় বিভিন্নরকম কুসংস্কারে আশ্রয় নিতে। এমন কি বহু উন্নত দেশের কথা এলে সর্ব প্রথমে ক্ষমতাধর আমেরিকার কথা আসে। সেখানে অনেক লোক সংখ্যাতত্ব কে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে থাকে, যেমন লাকী – সেভেন অনেক অনেক সৌভাগ্য বয়ে আনে আর পাশাপাশি তেরো সংখ্যা কে তারা এড়িয়ে চলে অশুভ কে তাড়াবার প্রয়োজনে ; যে কারণে বড় বড় অ্যাপার্টমেন্টে বারো তলার পর চৌদ্দ তলা দেখা যায় অথচ তেরো তলার অস্তিত্ব নেই ! নিউইয়র্কের বেশ কিছু লোকেরা বিশ্বাস করে যে, শুক্রবার বেলা চলে যাবার পর রবিবারের বেলা ডোবার মুহূর্ত পর্যন্ত কোনো ইলেকট্রনিক, ইলেকট্রিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা যাবে না – যেমন এলিভেটর, রেফ্রিজারেটর, এসি, টেলিভিশন, টেলিফোন এবং অনেক দরকারী মাইক্রো ওয়েভ অভেন ইত্যাদি ব্যবহার থেকে সম্পূর্ণ বিরত থাকে রীতি মেনে চলা বিশ্বাসী মানুষ। এমন কি অনেক অনেক হোটেলের মালিকদের ও দেখা যায় তাদের এ ধরনের রীতি মেনে চলতে তা না হলে নাকি দুর্ভাগ্য কে এড়ানো যাবে না। হোটেলের গেস্ট এক্ষেত্রে বিনা বাক্যে তাদের রীতি মেনে নিয়ে তখন এলিভেটরের পরিবর্তে সিঁড়ি ব্যবহার করে থাকে।

 

গত ৫ নভেম্বর ২০১৭ তে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জাপান সফরে গেলে সেখানের রীতি অনুযায়ী তাকে বিশেষ ভাবে স্বাগত জানানো হয়। ছোট্ট দুটি শিশুর হাতে ছোট বাটির মধ্যে রাখা খুব ছোট মাছ ছিটিয়ে দেওয়া হয় আগত মহান অতিথির গায়ে আর এতে নাকি মঙ্গল বয়ে আনে পারস্পরিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে।

চিনের বাড়িগুলোর একদম সামনে যার যার সাধ্য অনুযায়ী পানির ফোয়ারা স্থাপন করা হয়ে থাকে আর এর মানে – ফ্লো অফ মানি। চায়নার বাড়িতে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ড্রাগন মূর্তি ও ব্যাম্বু ট্রি রাখা হয়ে থাকে সৌভাগ্য আসার জন্য।

আফ্রিকায় অনেক খারাপ সংস্কার রয়েছে। এখনো সেখানকার মানুষের ধারণা দুই হাতের তালু চুলকালে অনেক টাকা আসে, টেবিল বা নীচু কোনো কাঠের তলার নীচ থেকে আসা যাওয়া করলে বেটে থাকবে। গ্রিকদের ধারণা মাকরশা সৌভাগ্যের প্রতীক। সে দেশে মাকরশা মারা মহাপাপ তাই মাকরশাদের বিশেষ সম্মান ও ভালবাসার নজরে দেখা হয়ে থাকে।

মানব জন্মের পর থেকেই নানা রকম কু-সংস্কার বা নানা রকম অযৌক্তিক ভ্রান্ত ধারণার উদ্ভব হয়েছে ; মূলত এর প্রধান কারণ অশিক্ষা, দূর্বলতা ভয় ও বিশ্বাস থেকে। প্রাচীনপন্থী সনাতন সেই কুপ্রভাব অন্ধ বিশ্বাস ও গোড়ামিকে প্রজন্মের পর প্রজন্ম বয়ে বেড়াচ্ছে। এর ভয়ানক কুপ্রভাব বিশ্বাসের মত একটি বেষ্টনী দ্বারা অবরুদ্ধ করে রেখেছে আর মিথ্যা বিশ্বাস কে বৈজ্ঞানিক যুক্তির মাধ্যমে তাকে খন্ডন করতে সমর্থ না হবার কারণ শুধু মানুষ নিজের অমঙ্গল কে বড় করে দেখেছে, নিজের বিপদে পড়ার ভয়ে। সত্য এবং যুক্তির অনুসন্ধানে এক রকম ভীতি কাজ করছে। জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং তথ্য প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ ই পারে সকল ভ্রান্ত ধারণা কাটিয়ে উঠে মুক্তির পথ খুঁজে পেতে।

Advertisement বিনোদনসহ যেকোনো বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও- rupalialo24x7@gmail.com
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

রোদেলা জান্নাত (Rodela Jannat)। ছবি : ফেসবুক
ঢালিউড3 weeks ago

শাকিব খানের নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত, কে এই রোদেলা : অনুসন্ধানী প্রতিবেদন

রঙ্গন হৃদ্য (Rangan riddo)। ছবি : সংগৃহীত
অন্যান্য3 weeks ago

ভাইরাল রঙ্গন হৃদ্যকে নিয়ে এবার সমালোচনার ঝড়

পূজা চেরি। ছবি : সংগৃহীত
ঢালিউড4 weeks ago

শাকিব খানেও আপত্তি নেই পূজা চেরির

শাকিব খানকে পেয়ে যা বললেন নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত
ঢালিউড3 weeks ago

শাকিব খানকে পেয়ে যা বললেন নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত

আয়েশা আহমেদ
অন্যান্য2 weeks ago

আয়েশা আহমেদের আবারও আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায় সাফল্য

শাকিব খান ও রোদেলা জান্নাত। ছবি : সংগৃহীত
ঘটনা রটনা3 weeks ago

বুবলীর পর এবার সংবাদ পাঠিকা রোদেলা জান্নাতকে নায়িকা বানাচ্ছেন শাকিব খান

পায়েল চক্রবর্তী
টলিউড3 weeks ago

টালিউড অভিনেত্রী পায়েল চক্রবর্তীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ঢালিউড3 weeks ago

এক হচ্ছেন শাকিব খান-নুসরাত ফারিয়া

অঞ্জু ঘোষ। ছবি : সংগৃহীত
ঢালিউড3 weeks ago

যে কারণে অবশেষে ঢাকায় ফিরলেন চিত্রনায়িকা অঞ্জু ঘোষ

শিনা চৌহান
অন্যান্য4 weeks ago

শিনা এখন ঢাকায়

সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : তাহমিনা সানি
নির্বাহী সম্পাদক : এ বাকের
প্রকাশক : রামশংকর দেবনাথ
বিভাস প্রকাশনা কর্তৃক ৬৮-৬৯ প্যারীদাস রোড, বাংলাবাজার, ঢাকা-১১০০ থেকে প্রকাশিত।
ফোন : +88 01687 064507
ই-মেইল : rupalialo24x7@gmail.com
© ২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রূপালীআলো.কম