Connect with us

গল্প

আরুপুরের ছোট্ট রাজপুত্র-আরহূ | তামান্না হাফিজ

Published

on

আরুপুরের ছোট্ট রাজপুত্র-আরহূ | তামান্না হাফিজ
আরুপুরের ছোট্ট রাজপুত্র-আরহূ | তামান্না হাফিজ

অনেক অপেক্ষার পর, ছোট ভাই ‘আরহু’ প্রথম বাড়ি এলো হাসপাতাল থেকে, এই দিনটার জন্য আরু অপেক্ষা করছিল অনেক দিন থেকে। সবার ছোট ভাইয়া/আপু আছে, শুধু আরশির ছিল না। তাই যেদিন সে প্রথম জানল আরেকটা ছোট বাবু বাসায় আসবে, আরুই সবচেয়ে খুশি হয়েছিল । ‘আরহু’ নামটা সে রেখেছিল সেদিনই, বলেছিল, ‘ভাই হোক আর বোন হোক, ওর নাম আরহু হতেই হবে, আমার সাথে মিল রেখে’। সবাই বলেছিল ‘নামটা সুন্দর রেখেছ আরু’।

আরুকে কেউ কখনও জিজ্ঞাস করলে, ‘তোমার বাসা কোথায়?’ আরু বলত, ‘আরু-পুর। আমাদের বাসাটার নাম আমি দিয়েছি আরু-পুর। সেখানে আমার বাবা রাজা, মা রানী আর আমি রাজকন্যা আরুবতী। আর আমার খেলনা আর বই গুলো আমার সেপাই আর মানুষ। আমার অনেক অনেক গল্পের বই আছে জানো?‘ সবাই খুব মজা পেত গল্প শুনে।যেদিন ছোট ভাইয়া বাড়ি এল, আরুবতী ওর সেপাই আর আরুবাসীদের বলল, ‘সবাই শোন,আমাদের নতুন রাজপুত্র এসেছে, তোমরা এসে দেখে যেও, খুব খুব সুন্দর হয়েছে সে, একদম আমার মত দেখতে।‘ ওর সেপাই আর গ্রামবাসী একদম চুপ করে শুনল, কারন রাজকন্যার সামনে কথা বলা যায় না, কক্ষনো না। তার সব কথা চুপ করে শুনতে হয় আর মেনে চলতে হয়। তাই ওরা সবাই রাজকন্যার সেই সুন্দর রাজপুত্রকে দেখার অপেক্ষা করতে থাকলো।

কিন্তু আরহু বাসায় আসার পর সব কিছু যেন একটু একটু করে বদলে যেতে লাগল আরুপুরে। আরু ভেবেছিল ভাইয়া এসেই ওর সাথে খেলা করবে , কিন্তু ভাইয়াটা শুধুই ঘুমাচ্ছে, আর ঘুম থেকে উঠলেই সেকি কান্না কাটি। বাবা বুঝতে পারল আরুর মনের কথা, বলল, ‘ভাইয়া টা এখনো খেলা করতে শিখেনি মা, এই কদিনের মধ্যেই ও তোমার সাথে খেলা করা শুরু করবে, তুমি ওকে সব রকম খেলা শিখিয়ে দেবে, ঠিক আছে মা?’। আরু বলল, ‘হ্যাঁ বাবা, আমিই ওকে সব কিছু শিখাব।‘

আজ আরহুকে দেখতে বাসায় সবাই এসেছে, আর সবাই আরহুর জন্য অনেক অনেক উপহার নিয়ে আসেছে। জামা কাপড়, মজা জুতা, খেলনা, বিছানা বালিশ আরও কত কি। ‘কি মজা আরহুর, কিন্তু এতো উপহার দিয়ে বাবু টা কি করবে?’ আরু ভাবল, ‘ও তো একটা ছোট মানুষ। মা কে বলতে হবে যেন সব উপহার আমার সাথে ভাগ করে আরহু। আমি ওর বড় বুবু।‘ কেমন যেন একটু মন খারাপ হল তার। নতুন বাবু আসলো বলে কি সবাই আরু কে ভুলে গেল? আরু কী পুরানো হোয়ে গেলো? ওর জন্য তো একটা গল্পের বই কেউ নিয়ে আস্তে পারত।

নানু আর নানাভাই আরহু কে কোলে নিয়ে বলল, ‘একদম চাঁদের মত হয়েছে।‘ আরু পাশে দাড়িয়েছিল, আর দেখছিল সবাই চাঁদ দেখছে কি মজা করে। দাদা দাদু বলল, ‘বাবুর হাসিটা সবচেয়ে সুন্দর।‘অবাক লাগল আরুর, ‘ওরা তো সব সময়ই আগে বলত, আরুর চাঁদের মত দেখতে, আরুর হাসির তুলনা নাই। আজকে ওদের কি হল, আরহু তো আরুর মতই দেখতে, একদম, আরুর মতই হাসি তার, কেউ কেন যেন বুঝতেই পারছে না!! তাহলে কি ভাইয়াটা আমার থেকেও বেশি চাঁদের মত দেখতে?’ আরু ওর ছবি আঁকার বইটাই হিজিবিজি আঁকতে সুরু করল। পাশের বাসার হিয়া খালামনিও এসেছে, সে আরহু কে দেখে বলল, ‘বাবু টার চোখ গুলো কি চক চকে। এতো সুন্দর হয়েছে বাচ্চাটা।‘ আরু এবার দৌড়ে আয়েনায় গিয়ে নিজেকে দেখল, আরশির চোখ গুলাও তো চকচকে, আর আরহুর থেকে আরশির চোখ অনেক বড় বড়ও মনে হল আরুর। তাহলে শুধু আরহুর চোখ গুলাই এতো সুন্দর বলল কেন খালামনি!? যাই হোক, খালামনিটা চশমা পরে তো, তাই মনে হয় ঠিক মত কিছুই দেখছে না, ভাবল আরুবতী। বর্ণমালার বইটা হাতে নিয়ে সে তার ঘরে গিয়ে খেলনা গুলা নারতে থাকলো।

মা ঘরে ঘুমের আরহু কে সুইয়ে দিতে আসলো। আরু ওর খেলনা গুলো দিয়ে আপন মনে খেলতে থাকলো , আর নানুর শেখানো প্রিয় ছড়াগানটা গাইতে ইচ্ছা করল ওর, গান টা গাইতে শুরু করল আপন মনে,
‘বুলবুল পাখি, ময়না টিয়ে,
আয়না যা না গান শুনিয়ে,
দূর দূর বনের গান,
নীল নীল নদীর গান,
দুধ ভাত দেব, সুন্ধেশ মাখিয়ে…।।‘

গানটা গেয়ে নানু আরু কে ঘুম পারায় সব সময়। গানের আওয়াজ এ আরহু কান্না শুরু করল, ‘কেমন বাচ্চাটা!!!’, আরু বলল, ‘এতো সুন্দর একটা গানও সে পছন্দ করে না’!!। মা আরুকে কোলে নিয়ে আদর করে বলল, ‘ভাইয়া টা ছোট তো, তাই একটু আওয়াজ হলেই উঠে যাচ্ছে মা। আমরা কি ভাইয়া টা ঘুমালে একটু ধীরে আওয়াজ করতে পারি, মা? তুমি না ওর লক্ষ্মী বড় বুবু?’

‘আচ্ছা , আমি একটু গানওকরতে পারব না মা? ঠিক আছে থাক।‘

‘করবে মা, তুমিই এখন থেকে ভাইয়া কে গান করে ঘুম পারাবে। তোমার মত সুন্দর গান আর কেউ করতে পারে না আরুপুরে। ভাইয়ার তো তোমার গান ছাড়া ঘুমই আসবে না। শুধু ভাইয়া ঘুমালে আমরা একটু আস্তে গান করব, ঠিক আছে মা?’ ‘হুম…’

‘না’, অনেক ভেবে ঠিক করল আরশি , ‘আরহু আমার আরুপুরের রাজপুত্র হতে পারবে না। সারা দিন কাঁদে, কানটা বেথা হয়ে যায় আরুর, তাও সবাই ওকে এতো ভালোবাসে। একটু আওয়াজ হলেই ঘুম থেকে উঠে যাই, এরকম রাজপুত্র আরুপুরে লাগবে না। আর বাবু টা আরুর সাথে খেলতেও পারে না। শুধুই ঘুমায়।‘ আরু ঠিক করল, আরহু আসলে ব্যাঙ রাজপুত্র, কোলা ব্যাঙ রাজপুত্র, সারা দিন কোলা ব্যাঙ র মত আওয়াজ করে কাঁদে। তাই মা যখন আরু কে ডাকল, বলল ভাইয়ার ঘুম ভেঙ্গেছেম এখন একটা সুন্দর গান করে আরহু কে শোনাতে, আরু চিৎকার করে গান ধরল,

‘ও সোনা ব্যাঙ, ও কোলা ব্যাঙ,
সারা রাত হেরে গলায় করিস ঘ্যাগর ঘ্যাঙ,
তুই কি গলা সাধিশ নি, তুই কি নাড়া বাধিশ নি।
আয় চলে আয় আমার কাছে শিখিয়ে দেব গান……
লালা লা …।‘

‘ভাল হয়েছে’, ভাবল সে, ‘পচা রাজপুত্র এখন ব্যাঙদের রাজপুত্র হয়েছে।‘
মামা মামীর সাথে মামাত ভাই শেরু এসেছিল, ছোট ভাইয়া কে দেখতে। শেরুকে আরু বলল, ‘শেরু জানো!, আমার ভাইয়াটা আসলে একটা ব্যাঙ রাজপুত্র, বুঝলে? কোলা ব্যাঙ রাজপুত্র। সারা দিন কাঁদে ব্যাঙ এর মত আওয়াজ করে।‘ শেরু শুনে অবাক হল, বলল ‘তাই?’ আরু বলল, ‘হুম, একদম!‘ শেরু বলল, ‘তাই বুবু? তাহলে তো আসলেই একটা ব্যাঙ কুমার।‘
এমন সময় মা আর বাবা আরু কে ডাকল, ‘আরু এই উপহারটা নাও। ‘
‘ভাইয়ার উপহার?’
‘না আরু, এটা তোমার, ভাইয়ার না।‘
‘তাই?? কিন্তু সবাই যে শুধু নতুন বাবুর জন্য উপহার আনে, আমি তো নতুন বাবু না। আমার জন্য আনলে যে!! মা, আমি কি পুরানো বাবু হয়ে গেছি?‘
‘নাতো!! কে বলল? তুমি জানো না!! তুমিও তো নতুন, নতুন বড় বুবু। সবচেয়ে বেশি আদর তুমি করবে তোমার ভাইয়াকে, তাই না? তোমার কি মনে হয়?’

‘হ্যাঁ, মা, আমি পুরান হইনি মা। কেউ মনে হয় এটা জানে না, শুধু তোমরা জানো।‘
তখনি নানা নানু, দাদা দাদু, মামা মামী, ছোট মামা সবাই একসাথে বলে উঠলো, ‘কে বলেছে কেউ জানে না? আমরা সবাই জানি আরুও এখন নতুন বুবু, আর আরহু আরুর মতই লক্ষ্মী হবে।‘ আরু তাকিয়ে দেখল, সবার হাতে রঙ্গের কাগজে মোড়া উপহার নতুন বুবু আরুর জন্যও।

একটু পর মা আরহু কে নিয়ে আসলো, আরহুর আবার ঘুম ভেঙ্গেছে, ছোট মামা দেখে অবাক হয়ে বলল, ‘আরে, আমাদের আরুর মত সুন্দর হয়েছে আমাদের আরহু। দুজনের কত মিল। চোখ , নাক , কান, চুল সব এক রকম সুন্দর।‘ আরুর যে কি খুশি লাগলো।
কিন্তু ছোট্ট শেরু বুঝতে পারছিল না এসবের কিছুই। সে আরহু কে দেখে বলে উঠলো ’বুবু একদম ঠিক বলেছে, বাবুটা তো একদম কোলা ব্যাঙ এর মতই দেখতে’।বলে শেরু হেসে ফেলল। হঠাৎ কেন যেন আরুর খুব রাগ হল, মনে হল আরহু কখনই ব্যাঙ না? ‘না ,এসব কথা বলবে না কেউ আমার ছোট ভাইয়া কে। ও কোলা ব্যাঙ না। শেরু তুমি এসে দেখ আরহু তোমার আর আমার মত সুন্দর।’

শেরু অবাক হয়ে বলল, ‘তুমিই যে বললে বুবু, ও একটা কোলা ব্যাঙ, ব্যাঙ কুমার!!‘
‘হ্যাঁ , আমি বলেছি, কিন্তু আর কখনো বলব না। আমার মনে হচ্ছিল ও ব্যাঙ কুমার, আমার রাজপুত্র না, কিন্তু আমার ভাইয়া আরুপুর এর রাজপুত্র। আমার আর শেরুর মত সুন্দর একটা বাবু।‘

আরু দৌড়ে গিয়ে মা র কোলে ঘুমিয়ে থাকা আরহু রাজপুত্রর গালে একটা আদর করল, আর ঘুমের মাঝেই ভাইয়া টা হাসল। কি সুন্দর লাগল আরুর সেই হাসি!!
‘মা, আরহু হাসল কেন মা?’ আরু জানতে চাইল।

‘আরহু তো এখনও কথা বলতে পারে না, তাই হেসে তোমাকে বুঝাল, ‘আমি তোমাকে সবচেয়ে ভালবসি বুবু’, সবচেয়ে বেশি, সবার থেকে বেশি।‘

এবার আরু আরহু কে জড়িয়ে ধরে বললে ,’আমিও ছোট ভাইয়া, আরুপুরের রাজপুত্র, তোমাকে সবচেয়ে ভালবাসি, সবার থেকে বেশি’।শেরুও এসে আরু আর আরহু কে জড়িয়ে ধরল।

আরু বলল, ‘তুমি আমাদের আরুপুরের ছোট্ট রাজপুত্র-আরহু।‘

Advertisement বিনোদনসহ যেকোনো বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও- rupalialo24x7@gmail.com
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

রোদেলা জান্নাত (Rodela Jannat)। ছবি : ফেসবুক
ঢালিউড3 weeks ago

শাকিব খানের নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত, কে এই রোদেলা : অনুসন্ধানী প্রতিবেদন

রঙ্গন হৃদ্য (Rangan riddo)। ছবি : সংগৃহীত
অন্যান্য3 weeks ago

ভাইরাল রঙ্গন হৃদ্যকে নিয়ে এবার সমালোচনার ঝড়

পূজা চেরি। ছবি : সংগৃহীত
ঢালিউড4 weeks ago

শাকিব খানেও আপত্তি নেই পূজা চেরির

আয়েশা আহমেদ
অন্যান্য2 weeks ago

আয়েশা আহমেদের আবারও আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায় সাফল্য

শাকিব খানকে পেয়ে যা বললেন নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত
ঢালিউড3 weeks ago

শাকিব খানকে পেয়ে যা বললেন নতুন নায়িকা রোদেলা জান্নাত

শাকিব খান ও রোদেলা জান্নাত। ছবি : সংগৃহীত
ঘটনা রটনা3 weeks ago

বুবলীর পর এবার সংবাদ পাঠিকা রোদেলা জান্নাতকে নায়িকা বানাচ্ছেন শাকিব খান

পায়েল চক্রবর্তী
টলিউড3 weeks ago

টালিউড অভিনেত্রী পায়েল চক্রবর্তীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ঢালিউড3 weeks ago

এক হচ্ছেন শাকিব খান-নুসরাত ফারিয়া

শিনা চৌহান
অন্যান্য3 weeks ago

শিনা এখন ঢাকায়

অঞ্জু ঘোষ। ছবি : সংগৃহীত
ঢালিউড3 weeks ago

যে কারণে অবশেষে ঢাকায় ফিরলেন চিত্রনায়িকা অঞ্জু ঘোষ

সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : তাহমিনা সানি
নির্বাহী সম্পাদক : এ বাকের
প্রকাশক : রামশংকর দেবনাথ
বিভাস প্রকাশনা কর্তৃক ৬৮-৬৯ প্যারীদাস রোড, বাংলাবাজার, ঢাকা-১১০০ থেকে প্রকাশিত।
ফোন : +88 01687 064507
ই-মেইল : rupalialo24x7@gmail.com
© ২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রূপালীআলো.কম