Connect with us

রূপালী আলো

মিল্টন বিশ্বাসের একগুচ্ছ প্রেমের কবিতা

Published

on

মিল্টন বিশ্বাসের একগুচ্ছ প্রেমের কবিতা

মিল্টন বিশ্বাসের একগুচ্ছ প্রেমের কবিতা

নন্দিনী সিরিজ

কবিতা-১

নন্দিনীউড়ছে তোমার দীঘল কালো চুল!!

এ কোন দিন এলো আজ!
ঢেউয়ের দোলায় দুলছে তোমার মেঘবালিকার হাত,
দীঘল কালো চুলের কোলে হাসছে সবুজ রাত।
চুল যে তোমার নরম কোমল বিছানো লজ্জা,
শরীর যেন সাপের খোলে ঝরাপাতার সজ্জা।
নাচে তোমার চুলে ওগো বৈশাখী এক গান,
বাজে চুলের বীণা যেন ইমন গভীর তান।
নন্দিনী,
কালো চুলের আনন্দ আজ চিতার মতো জ্বালো,
নরম ছোঁয়ায় বিলিয়ে দাও নীল যমুনা আলো?
স্নান শেষে আদুরে মুখে লাগল জলের ধারা,
কালো হীরের রহস্যে ছোঁয়া জীবন দিশেহারা।
তোমার চোখের আলো, চুলের জল, দিচ্ছে প্রেমের দোলা
তোমার সুখের হাসি, চুমোর আঁচে গলছে পাথর নীলা। ৮-৪-২০১৭

কবিতা-২

প্রেমের আরতি !!
ছল-চাতুরি শিখিনি কোনো দিন।
তবু স্রোত ভেঙে যেতে চায় মন।
মন্দিরে পূজার উপাচারে ব্যস্ত রাঙা হাত
বাইরে দাঁড়িয়ে আমি
ভক্তির আরতি ঢেলে বুদ্ধের দিকে নম্র নেত্র।
বুকে বাজে আশা
তথাগতের প্রণাম শেষে একটু করুণা দৃষ্টি!
দেবতা জাগে, দেবী হয়ে দেখা দেয় সবুজ নন্দিনী
দৃষ্টিতে লেগে থাকে অভিমানী গ্রীবা।
বাক্যালাপে ছন্দের খেলা? নাকি আসল ভক্তি?
দৃষ্টি ছুড়ে বলে যায়-
যদি জাগে ঢেউ এসো তবে আমার সাথে।
তবু কামনার প্রেম তুচ্ছ জেনেছি দুজনে।
নদী চলে যায়। আলো পড়ে থাকে তীরে।
আকাশের ঢেউ কেঁদে ফেরে নিরালায়।
পূজা শেষে ধাবমান ওই আঁখি-
প্রেম পথে হাঁটার বারতা জানায়।
পথ তার খুঁজে পায় ঘর
জেগে ওঠে ঠোঁটের আদর।
মিলনের গানে অরণ্য রঙিন-
বাতাসে বিলোল রাইকিশোরীর কাঁসর ধ্বনি-
ঢেউ দুলে আকাশ ভাঙে, মোহনার দিকে নদী-
পৃথিবীর হলাহলে, সৃষ্টির বীজ বুনে,
বাসনা উজাড় করি আমরা দু’জন।১/৩/২০১৭

কবিতা-৩

নন্দিনীময়নামতি তোমার কথা বলে !!

ময়নামতির সন্ধ্যা!
ঢেউ তোলা চাঁদের নিচে একা আমি।
আকাশজুড়ে নিস্তব্ধতার কোলাহল,
চারিদিকে ফিসফাস, খয়রঙা ইট
পুরানো ঘাসের খোলস থেকে কোনো এক প্রারমিতা
ডেকে নিল গভীরে, নিরিবিলি আলিঙ্গনে।
নন্দিনী,
পতিত ইটের ভাণ্ডারে তোমাকে পেলাম আমি
তোমার নাম ধরে কে যেন দিল ডাক, দিল কি?
নামের সংকেতে ফিরে তাকাতেই দেখি
গৌতম বুদ্ধের অঙুলি নির্দেশ।
নন্দিনী,
এ কোন নগর, যার দ্বারে দাঁড়িয়ে স্বয়ং তথাগত!
এ কোন কুটির যার ছায়ায় বিদগ্ধ যুবকের আনাগোনা!
দুঃখের নির্বাণ নিয়ে রাতদিনের বিশাখা যজ্ঞ?
নন্দিনী,
আলোতে শরীর ধুয়ে মৈত্রী সংঘের বাণীতে
আমরা সুর তুলি
বুদ্ধের দয়া মাগি।
জেগে ওঠে প্রাচীন নগর-
দেখি তোমার নাম ধরে ডাকছে তিষ্য রাজকুমার
তোমার গুণগান করছে বিদুষী জিতসোমা
এ প্রাচীন নগরে এসে কোশলপতি
তোমার রূপের কথাই বলেছে আমাকে।
নন্দিনী,
এ নগরে শালবন এখন স্নিগ্ধ অন্ধকার
জাতকের গল্প রঙ ছড়িয়ে হয়েছে সবুজ ঘোড়া।
এ নগরে,
তোমাকে দেখছি হেঁটে যাচ্ছ পুথিশালার পাশ দিয়ে
তোমাকে দেখছি আচার্যের সামনে দাঁড়িয়ে জোড়হাতে
মন্দিরের আঙিনায় বসে মুগ্ধ চোখে দেখচ্ছ করুণা বৃষ্টি
তোমাকে দেখছি গেরুয়া চরণ ছুঁয়ে নত মস্তকে
তপস্যার জপমালা তোমার নীলাঞ্জল।
নন্দিনী, ময়নামতি তোমারই কথা বলে…।৪/৩/২০১৭

কবিতা-৪
ময়নামতির বৌদ্ধমন্দিরের দুপুর!!

রোদ ঝলমলে ভিড়
অথচ তুমি ছাড়া কি ভয়ঙ্কর শূন্য।
ক্রমশ বিকাল গড়িয়ে নরম হয় মাটি
রাতের বাতাসে চোখ মেলে ভালোবাসার জল
ঠিক তখন রহস্য এক ডাকে জেগে উঠলে তুমি।
হাত ধরে নিয়ে গেলে বোধিকুমারের পর্ণ কুটিরে|
নন্দিনী,
তোমার নগর, তোমার দুপুর, তোমার আলোভরা রাত
জীবন এখানে শতমুখী বৃক্ষ
জীবন এখানে একমুঠো সুখ
হাঁটুগেড়ে বসে থাকি সেই জীবনের সামনে।
রাত বাড়ে, সুজাতা এসে ডেকে নেন ভোজনশালায়
তথাগত বলেন বনচ্ছায়ে তোমার হারিয়ে যাবার গল্প।
নন্দিনী,

এ বৌদ্ধবিহারে, এ প্রাচীন শালবনে
চারিদিকে তুমি আর তুমি
আকাশ-বাতাসে মেঘমল্লারে
ফুলে ঢাকা পাখির কলতানে।
তবু নীল, তামাটে আর লাল দিগন্তে
ধুলো আর সমুদ্র ঘিরে
রঙ ছুঁয়ে, অসীম প্রান্তর পেরিয়ে
খুঁজে ফেরা তোমাকেই।
ময়নামতি, ময়নামতি আমার
বারবার তোমারই ঘরে-
ঘুরেফিরে আসব আমি-
চিরকালের নন্দিনী ছায়ায় ।৪-৩-২০১৭

কবিতা-৫
পোর্ট ডিকসনের সমুদ্র সকাল!!

অদ্ভুত এক ঘুম ঘোরে জেগে উঠি
তখনও আলো এসে স্ফিত জলে দেয়নি ধাক্কা
একা আমি, চারিদিকে নিস্তব্ধতা
দুলে দুলে বিশাল মালাক্কা ঢেউ আছড়ে পড়ছে বালুকা তটে।
তখনও জাগেনি কেউ, পাখির কলতান নেই ধারে কাছে।
নীরবে নেমে যাই অচেনা সমুদ্রের ধারে
দূরের বাতিঘর আলো ঘুরিয়ে নিয়ে যায় ক্ষণে ক্ষণে
তারও দূরে হয়ত পোতাশ্রয় রয়েছে দাঁড়িয়ে নীরবে।
কয়েক হাজার পথের শেষে এই শাখাহীন সমুদ্রের কোলে
হাঁটছি আমি একা, জীবনের আগুনে পোড়া নীলে।

একা আমি, বিশাল সৌন্দর্যের গভীর জঙ্গলে।
নিচে নেমে আসা ব্যাপ্টিস্ট চার্চের সীমানা ভেঙে-
সিঁড়িতে পড়েছে অজানা ছায়া-
চেয়ে দেখি ক্রমশ ক্ষয়ে যাওয়া এক প্রাচীন বৃক্ষের দিকে-
অজগর মুখ নিয়ে এগিয়ে আসছে হাওয়ার ঢেউ।
পাশাপাশি তিনটি গাছ
অন্ধকার সমুদ্র জলের আদর মেখে
বসে আছে রহস্যের কলসি নিয়ে।
ভয় পাই, তবু একাকী চলা থামে না আমার।

নন্দিনী, সেদিন তুমি ছিলে না কাছে
সেদিন তোমার কথা
পোর্ট ডিকসনের সমুদ্র সকালে পড়েনি মনে।
অথচ আবার আজ সেই ভোর সমুদ্রের স্মৃতি-
উথাল-পাতাল বাতাস-
তোমার পিঙ্গল প্রহরে
জেগে উঠেছে মনের শীত ঘর।
পোর্ট ডিকসনের মালাক্কা আজ জানিয়েছে-
তোমাকে ভালোবেসে
চাঁদ ডুবা আর পাতা ঝরা সেই সৌখিন ঢেউ রাঙা মশালে-
হারাতে হবে জীবনের সোনালি ময়ূর। ৬-৩-২০১৭

 

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook

(ভিডিও)
অন্যান্য1 week ago

আলোচনায় ‘রস’ (ভিডিও)

মাসুমা রহমান নাবিলা (Masuma Rahman Nabila)। ছবি : সংগৃহীত
ঘটনা রটনা4 months ago

‘আয়নাবাজি’র নায়িকা মাসুমা রহমান নাবিলার বিয়ে ২৬ এপ্রিল

‘মিথ্যে’-র একটি দৃশ্যে সৌমন বোস ও পায়েল দেব (Souman Bose and Payel Deb in Mithye)
অন্যান্য4 months ago

বৃষ্টির রাতে বয়ফ্রেন্ড মানেই রোম্যান্টিক?

Bonny Sengupta and Ritwika Sen (ঋত্বিকা ও বনি। ছবি: ইউটিউব থেকে)
টলিউড4 months ago

বনি-ঋত্বিকার নতুন ছবির গান একদিনেই দু’লক্ষ

লাভ গেম-এর পর ঝড় তুলেছে ডলির মাইন্ড গেম (ভিডিও)
অন্যান্য4 months ago

লাভ গেম-এর পর ঝড় তুলেছে ডলির মাইন্ড গেম (ভিডিও)

ভিডিও5 months ago

সেলফির কুফল নিয়ে একটি দেখার মতো ভারতীয় শর্টফিল্ম (ভিডিও)

ঘটনা রটনা6 months ago

ইউটিউবে ঝড় তুলেছে যে ডেন্স (ভিডিও)

ওমর সানি এবং তিথির কণ্ঠে মাহফুজ ইমরানের ‌'কথার কথা' (প্রমো)
সঙ্গীত7 months ago

ওমর সানি এবং তিথির কণ্ঠে মাহফুজ ইমরানের ‌’কথার কথা’ (প্রমো)

সালমা কিবরিয়া ও শাদমান কিবরিয়া
সঙ্গীত7 months ago

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গান গাইলেন সালমা কিবরিয়া ও শাদমান কিবরিয়া

মাহিমা চৌধুরী (Mahima Chaudhry)। ছবি : ইন্টারনেট
ফিচার8 months ago

এই বলিউড নায়িকা কেন হারিয়ে গেলেন?

সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : তাহমিনা সানি
প্রকাশক : রামশংকর দেবনাথ
বিভাস প্রকাশনা কর্তৃক ৬৮-৬৯ প্যারীদাস রোড, বাংলাবাজার, ঢাকা-১১০০ থেকে প্রকাশিত।
ফোন : +88 01687 064507
ই-মেইল : rupalialo24x7@gmail.com
© ২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রূপালীআলো.কম